Untitled Document
মূলপাতা শিরোনাম বটতলা পঞ্জিকা প্রদর্শনী
এ্যালবাম
সংকলনঃ
মোল্লা সাগর


সম্পূর্ণ গানটির প্রতি শ্রদ্ধাশীল হবার জন্য আমাদের এই প্রয়াস

১৯০৫,বঙ্গভঙ্গ আন্দোলন।
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর গেয়ে উঠলেন “আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালবাসি”
গানটি গাইতে গাইতে আন্দোলনের দীর্ঘপথ পাড়ি দিয়ে জন্ম হলো ১৯৪৭
বঙ্গ দুভাগ হলো।

’৪৭ পরবর্তী পূর্ববাংলার মানুষ পুনরায় এই গানটি গাইতে গাইতে স্বাধীন বাংলাদেশের জন্ম।
১৯৭২ সালে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক গানটি জাতীয় সংগীতের মর্যাদা পায় (অংশবিশেষ)।

এ্যালবামটি শুনতে শুনতে যদি শ্রোতার মনে কোন ভাবনার উদয় হয় অনুগ্রহ করে ..ভাববেন না।
Download These Files


আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালবাসি
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

আমার সোনার বাংলা, আমি তোমায় ভালবাসি
চিরদিন তোমার আকাশ তোমার বাতাস
আমার প্রাণে বাজায় বাঁশি
ও মা, ফাগুনে তোর আমের বনে ঘ্রানে পাগল করে--
মরি হায়, হায় রে
ও মা আমার প্রাণে বাজায় বাঁশি সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালবাসি।
ও মা অঘ্রাণে তোর ভরা ক্ষেতে কী দেখেছি, আমি কী দেখেছি
মধুর হাসি সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালবাসি।

কী শোভা কী ছায়া গো কী স্নেহ কী মায়াগো কী আঁচল বিছায়েছ
বটের মূলে নদীর কূলে কূলে
মা তোর মুখের বাণী আমার কানে লাগে সুধার মতো
মরি হায় হায়রে-
মা তোর বদনখানি মলিন হলে
আমি নয়ন জলে ও আমি নয়ন জলে ভাসি
সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালবাসি।

তোমার এই খেলাঘরে শিশুকাল কাটিলরে
তোমারি ধূলামাটি অঙ্গে মাখি ধন্য জীবন মানি
এই দিন ফুরালে সন্ধ্যাকালে কী দীপ জ্বালিস ঘরে
মরি হায় হায়রে-
তখন খেলাধূলা সকল ফেলে, ও মা তোমার কোলে ছুটে আসি।

ধেনু চরা তোমার মাঠে, পারে যাবার খেয়াঘাটে
সারাদিন পাখি ডাকা ছায়ায় ঢাকা তোমার পল্লীবাটে
তোমার ধানে ভরা আঙিনাতে জীবনের দিন কাটে
মরি হায় হায়রে-
ও মা তোমার যে ভাই তারা সবাই, ও মা তোমার রাখাল, তোমার চাষী।

ও মা তোর চরণেতে দিলেম এই মাথা পেতে
দেগো তোর পায়ের ধূলা, সে যে তোমার মাথার মণি হবে।
ও মা গরীবের ধন যা আছে তই দিব চরণতলে
মরি হায়, হায়রে-
আমি পরের ঘরে কিনবো না আর, মা তোর ভূষণ বলে গলায় ফাঁসি।

রচনাকালঃ
৭ আগস্ট ১৯০৫






Untitled Document
 
Total Visitor : 698467
সাপলুডু মূলপাতা | মতামত Contact : shapludu@gmail.com
Copyright © Life Bangladesh Developed and Maintained By : Life Yard