Untitled Document
মূলপাতা শিরোনাম বটতলা পঞ্জিকা প্রদর্শনী

লোকস্বরস্বতীঃ কালিদাস গুপ্তের গান ও জীবন (দ্বিতীয় পর্ব)

ক্যাসেটটির মোড়কে লেখা :

কালিদাসগুপ্ত পূর্বভারতীয় লোকগীতির  একজন অন্যতম শ্রেষ্ঠ সংগ্রাহক ও গায়ক। ১৯৪০ সাল হতে তিনি সংগ্রহ করে আসছেন বাংলার সাধারণ মানুষের জীবন ও জীবিকাকে ধারণ করা গান। সে সময়ে তিনি বাম আন্দোলেনের সক্রিয় কর্মী ছিলেন। বেশকিছু দুর্লভ গান সহ তার সংগ্রহে এখন কয়েক হাজার লোকগান আছে। এই গানগুলি শুধুমাত্র বাংলার  বৈচিত্রময় জীবনের অভিজ্ঞতা, গ্রাম্য নারীর জীবন, বিলপ্ত হয়ে যাওয়া বিভিন্ন জীবিকা বা দুর্লভ ধারার গানই নয়, ব্রিটিশ আমলে বাংলার ইতিহাস চিত্রিত করে। ১৯৬৫ সালে তিনি ইংল্যান্ড যান। সেখানে তাঁর সাথে পরিচয় ঘটে বিশিষ্ট দুই লোকগান বিশেষজ্ঞ ইউয়ন  ম্যাককোল ও  প্যেগী সিগারের সাথে। তারা কালিদাস গুপ্তের গায়কীতে মুগ্ধ হন। তিনি যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যে সমাদৃত হন। ১৯৭০ সালে তিনি দেশে ফিরে  আসেন। ফিরে এসে তিনি শুরু করলেন গান শেখানো, গান সংগ্রহ আর মাঝে মাঝে পারফর্ম করা। এখন তাঁর অসংখ্য ছাত্র ও অনুরাগী  আছে। বোম্বের “ন্যাশনাল ফর পারফর্মিং আর্টস” এবং ভূপালের “ভারত ভবন” তাঁর গানের কিছু অংশ সংগ্রহ করেছে।  আসামের চা বাগানের গানের কিছু সংকলন নিয়ে তিনি দুটি গানের সিডি প্রকাশ করেছেন। তাঁকে নিয়ে একটি প্রামাণ্য চিত্র তৈরি হয়েছে।

 
চা বাগানের গান :

কালী বলে চললো :
এখন তোমাদেরকে একটা চা বাগানের গান শোনাবো। গানটি শুরু হয়েছে এভাবে- “চল মিনি আসাম যাই, সেখানেই আমাদের  ভবিষ্যৎ, সেই সবুজ চা বাগানে।” এই গানটির একেকটা ছত্র চার লাইনের এবং প্রতিটি ছত্রের সুর একই। গানটিতে একটা গল্প বলা আছে। গানটি সম্ভবত লেখা হয়েছিল ছোট নাগপুরে। এই অঞ্চলটি দক্ষিণ বিহার, পশ্চিমবাংলা,  উড়িশ্যা ও অন্ধ্রপ্রদেশের কিছু অংশ নিয়ে বিস্তৃত। এটি একটা খরাপ্রবণ এলাকা। এবং এখানকার অধিবাসীরা জীবিকার সন্ধানে বাধ্য হয়েই ভারতের বিভিন্ন অঞ্চলে চলে যায়।  তারা প্রথমে কলকাতা এসে কুলির কাজ করে, পরে স্টিমার ধরে আসামে যায়। “চল মিনি আসাম যাই, সেখানেই আমাদের  ভবিষ্যৎ, সেই সবুজ চা বাগানে।” কিন্তু হায়! আস্তে আস্তে তারা বুঝতে পারে তাদের স্বপ্ন কখনোই পূরণ হবার নয়।  

 


মার্ক জর্জি এর সাক্ষাৎকার থেকে বাংলায় ভাষান্তরঃ
শফিকুর রহমান শিপন

Untitled Document
Total Visitor : 708692
সাপলুডু মূলপাতা | মতামত Contact : shapludu@gmail.com
Copyright © Life Bangladesh Developed and Maintained By : Life Yard